রায় ঘোষণার পর বাসে পেট্রোল বোমা হামলা

petrolএকুশে আগস্টের গ্রেনেড হামলার রায় ঘোষণার পর বুধবার দুপুরে বগুড়ার শাজাহানপুরে একটি যাত্রীবাহী কোচে পেট্রোল বোমা হামলা হয়েছে। এ ঘটনায় কোচের দুই নারী যাত্রী আহত হয়েছেন।

হামলায় জড়িত সন্দেহে পুলিশ জেলা যুবদলের সহকারী কৃষিবিষয়ক সম্পাদক নুর মোহাম্মদকে (৩০) ধাওয়া করে গ্রেফতার করেছে।

আহতরা হলেন, নীলফামারীর জলঢাকা উপজেলার শিমুলবাড়ি গ্রামের নজরুল ইসলামের স্ত্রী মুনিরা বেগম (৪০) ও সদর উপজেলার মোজাম্মেল হকের স্ত্রী আঞ্জুয়ারা বেগম (৫০)।

প্রত্যক্ষদর্শী ও পুলিশ জানায়, নীলফামারী থেকে ছেড়ে আসা ঢাকাগামী নাবিল পরিবহনের একটি কোচ বুধবার দুপুর ১টার দিকে শাজাহানপুর উপজেলার সাজাপুর এলাকায় ঢাকা-বগুড়া মহাসড়কে টিএমএসএস পাম্পের সামনে পৌঁছালে ৮-১০ জন দুর্বৃত্ত প্রথমে কোচ লক্ষ্য করে লাঠি নিক্ষেপ করে।

এরপর তারা একটি পেট্রোল বোমা নিক্ষেপ করলে সেটি কোচের মধ্যে গিয়ে পড়ে। সিটে আগুন ধরে গেলে যাত্রী মুনিরা বেগম ও আঞ্জুয়ারা বেগম আহত হন। কোচের চালক আসলাম ও শ্রমিকরা তাৎক্ষণিকভাবে আগুন নিভিয়ে ফেলেন।

এ সময় টহল পুলিশ ধাওয়া করে শাজাহানপুরের মাঝিরাপাড়া গ্রামের খাজা মিয়ার ছেলে যুবদল নেতা নুর মোহাম্মদকে গ্রেফতার করে।

কোচের যাত্রী নীলফামারীর সদর উপজেলার উত্তর বালাপাড়ার শামসুল ইসলামের মেয়ে আমিনা খাতুন(২৭) বলেন, দুর্বৃত্তরা পেট্রোল বোমা নিক্ষেপ করলে চালক কোচ থামিয়ে দেন। এরপর দুর্বৃত্তরা কোচ ভাংচুর করে। তার সামনের সিটে আগুন ধরে গেলে তিনি সন্তানকে নিয়ে জানালা দিয়ে নেমে পড়েন।

বগুড়ার সদর সার্কেলের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার(মিডিয়া) সনাতন চক্রবর্তী জানান, ঢাকাগামী কোচে পেট্রোল বোমা হামলায় দুই নারী যাত্রী সামান্য আহত এবং জড়িত সন্দেহে একজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে।