যুক্তরাষ্ট্রের চাঁদে যাওয়ার ঘটনা ‘সাজানো’!

৪৮ বছর আগে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র দাবি করে তারাই প্রথম চাঁদের মাটিতে পা রেখেছে। তাদের দাবির সঙ্গে বিশ্বের ইতিহাসে যুক্ত হয় দুই মার্কিন নভোচারীর নাম- নীল আর্মস্ট্রং ও বাজ অলড্রিন। কিন্তু অনেকেই একে ‘সাজানো ঘটনা’ বলে অভিযুক্ত করেছে।

এত বছর পরও থেমে নেই অভিযোগ। সম্প্রতি এ নিয়ে একটি চাঞ্চল্যকর ছবি প্রকাশ পেয়েছে। ছবিতে দেখা গেছে, চন্দ্র অভিযানের তিন বছর পর চাঁদে মার্কিন ‘অ্যাপোলো ১৭ অভিযানে’ এক ব্যক্তি হাঁটছেন কোনো স্পেস স্যুট ছাড়াই।

ধারণা করা হয়, অ্যাপোলো ১৭ চাঁদে নামে ১৯৭২ সালের ৭ ডিসেম্বর। চন্দ্রাভিযানের ৬ষ্ঠ ও শেষ অভিযানটিও ‘সাজানো’ ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের দাবি যে ‘মিথ্যা’ তাই প্রমাণ করে এ ভিডিওটি। ভিডিওটি পোস্ট করেন এক ইউটিউব ব্যবহারকারী।

কর্তৃপক্ষের বরাত দিয়ে মিরর জানিয়েছে, নভোচারী ইগুয়েনে কেরম্যানের সঙ্গে নাসার তিন কর্মকর্তা চাঁদের মাটিতে নেমে হেঁটেছেন। কিন্তু ছবিটি খুব কাছ থেকে দেখলে দেখা যাবে, এই পুরো ঘটনাটি চিত্রায়ন করা হয়েছে একটি হলিউড চলচ্চিত্রের সেটে। নভোচারীদের মধ্যে একজন ওয়েস্টকোট পরে দাঁড়িয়ে আছেন।

ওই ইউটিউব ব্যবহারকারী জানান, নভোচারীর হেলমেটের কাঁচে অপর ব্যক্তির ছায়া দেখা যায় যিনি কোনো স্পেস স্যুট পরেননি। ৭০এর দশকের ফ্যাশনের সঙ্গে মিলিয়ে লম্বা চুল তার।

গতকাল শনিবার স্ট্রিটক্যাপ ওয়ান নামে এক ইউটিউব ব্যবহারকারী সূত্রহীন এই ভিডিওটি পোস্ট করেন। দুই বছর আগে হলিউড পরিচালক স্ট্যানলি কুবরিক স্বীকার করেছিলেন তিনি অ্যাপোলো টু অভিযানের পৃথিবীর দৃশ্য ক্যামেরায় ধারণ করেছিলেন। আর এখন প্রকাশিত হলো এই সন্দেহকারীদের দাবি প্রমাণ করা এই ছবিটি।