যার কারণে এখনো টিকে আছেন মাশরাফি

mashদুই হাঁটুতে অস্ত্রোপচার হয়েছে সাতবার। এ রকম একটা অস্ত্রোপচারেই শেষ হয়ে যেতে পারে একজন অ্যাথলেটের ক্যারিয়ার। কিন্তু মাশরাফি বিন মর্তুজার বেলায় প্রকৃতি ছিলো অন্য রকম। একবার দূরে থাক, সাত সাতবারেও তিনি টিকে গেছেন এবং ক্রিকেটে ফিরে এসেছেন আরো বেশি শক্তি ও উদ্যম নিয়ে। তার এই সব ফিরে আসার গল্পের পিছনে ছিলেন এক নায়ক— ডেভিড ইয়ং।

মাশরাফির প্রথম অস্ত্রোপচারটা ছাড়া, বাকি সবগুলো করেছেন এই অস্ট্রেলিয়ান শল্যবিদ। তার অস্ত্রোপচার এবং তর দেয়া পুনর্বাসন প্রক্রিয়া অনুসরণ করেই মাশরাফি ফিরে এসেছেন বারবার। সোমবার ডেভিড ইয়ংয়ের সঙ্গে ফের দেখা হলো মাশরাফির।

বাংলাদেশ অর্থোপেডিক্স সোসাইটির আমন্ত্রণে বাংলাদেশ আসা ডেভিড ইয়ং সোমবার এসেছিলেন বিসিবিতে। সেখানে খেলোয়াড়দের ইনজুরি নিয়ে কাজ করা কর্তাব্যক্তিদের একটি সেমিনার করেন তিনি। সেমিনারটিতে উপস্থিত ছিলেন মাশরাফিও। সেমিনার শেষে মাশরাফি বলেন, ‘উপরে আল্লাহ আছেন— মাধ্যম হিসেবে আছেন ডেভিড ইয়ং; ওর কারণেই আমি এখনো খেলে যাচ্ছি। ওই আমার সব কিছু করেছে। আমার প্রতিটি অস্ত্রোপচার খুব জটিল ছিলো। কিন্তু পেশাদার হওয়ার পরও খুব যত্ন করে আমার সেবা করেছে।’

মাশরাফি তার ক্যারিয়ার টিকে থাকার কারণ হিসেবেই উল্লেখ করেছেন তার কথা। কিন্তু ডেভিড ইয়ং তা মানলেন না। সোমবার সংবাদ মাধ্যমের মুখোমুখি হয়ে তিনি বলেন, ‘মাশরাফি তার খেলা ও দেশের প্রতি অত্যন্ত নিবেদিত প্রাণ। আমার খুব ভালো লাগে, কারণ তার ক্যারিয়ারে আমার সামান্য ভূমিকা আছে। তবে যা করার সেই বেশি করেছে।’

শুধু মাশরাফি নন, বাংলাদেশের যে সব ক্রিকেটার পা বা পিঠের ইনজুরিতে পড়েছেন, সবাই ছুটে গেছেন ডেভিড ইয়ংয়ের কাছে। এই দুই ইনজুরির জন্য অন্য কারো উপর ক্রিকেটাররা এতো ভরসা করতে পারেন না। মাশরাফি বলেন, ‘ও কিন্তু আমাদের অনেকেরই চিকিৎসা করেছে। ও আসলে বাংলাদেশ ক্রিকেটের এক অদৃশ্য বন্ধু।’

ডেভিড ইয়ং মনে করেন, মাশরাফি যেভাবে বারবার ফিরে এসেছেন, এমন আসলে খুব বেশি হয় না। তার ঘটনাকে তিনি অবিশ্বাস্য বলে অভিহিত করেছেন। একই সঙ্গে তিনি বলেন, ‘পুনর্বাসন প্রক্রিয়ায় খুব মনোযোগ দেয়ার কারণেই মাশরাফির ক্যারিয়ার টিকে আছে। আমি মাশরাফির ব্যাপারে যে জিনিসটা বেশি পছন্দ করি, তা হলো সে একজন ভালো মানুষ, ভালো হৃদয়ের মানুষ।’

সোমবার মাশরাফির ফিটনেসও দেখেছেন ডেভিড। এরপর সংবাদ তিনি এও বলেছেন যে, মাশরাফির শরীরের এখন যে অবস্থা, তাতে তার টেস্ট খেলা নিয়ে কোনো সমস্যা নেই এবং একজন নেতা হিসেবও মাশরাফি টেস্ট দলের অংশ হতে পারেন বলে মন্তব্য করেন তিনি।