মুসলমানেরা যে ৬টি প্রধান কারণে এত বেশি নির্যাতিত হচ্ছে

muslimএইতো আজ থেকে মাত্র দেড় দশক আগের কথা। বিশ্বের কোথায় বোমা বিস্ফোরণতো দুরে থাক মারামারির কথাও তেমন একটা শুনতে পাওয়া যেত না। অথচ ২০০১ সালে আমেরিকার টুইন টাওয়ার ধ্বংসের অযুহাতে আফগানিস্তান ও ২০০৩ সালে জীবানু অস্ত্র মজুদের অভিযোগে ইরাক আক্রমন করে মার্কিন বাহিনী। সেই থেকে আজ অবধি বিশ্বের নানা জায়গায় চলছে মুসলমান নিধন অভিযান।

মুসলমান নিধনের এই অভিযানের অন্যতম কৌশল হিসেবে পশ্চিমা দেশগুলো বিভিন্ন সন্ত্রাসীদের দাঁড়ি টুপি পরিয়ে তাদের হাতে অস্ত্র তুলে দিয়ে মুসলামানদের বানিয়েছে জঙ্গি। আর তাদের নিজেদের আবিস্কৃত ঐ সকল জঙ্গিদের দমনের নামে একের পর এক বিভিন্ন দেশে আগ্রাসন চালিয়ে বর্তমান বিশ্বকে হাঁপিয়ে তুলেছে তারাই। তাদের একক কৌসলের কাছে পৃথিবীর সংখ্যাগরিষ্ট মুসলমানেরা বারে বারে বিভিন্ন কারণে নির্যাতিত হচ্ছে।

মুসলমানদের উপর চলা এই নির্যাতন বিষয়ে জানতে হলে আমাদেরকে প্রথমে মুসলিম বিশ্বের ইতিহাস জানতে হবে। মুসলিম সভ্যতার সোনালি যুগের পতনের পর গত কয়েক শতাব্দিতে মুসলিম দেশগুলো কথিত পশ্চিমা সভ্যতার (শিক্ষা, সংস্কৃতি, রাজনৈতিক ও সামরিক ক্ষেত্রে) সর্বোপরি আগ্রাসনের শিকার হয়। এর ফলে জ্ঞান-বিজ্ঞান, রাজনীতি, অর্থনীতি ও সামাজিক দিক দিয়ে এ দেশগুলোর অবস্থা শোচনীয় পর্যায়ে পৌঁছে যায়। এ কারণে মুসলিম দেশগুলোর অবস্থা আগের তুলনায় অনেক দুর্বল হয়ে পড়ে।

স্বাভাবিকভাবেই, মুসলিম দেশগুলোর দুর্বলতার কারণে এসব দেশের সাধারণ মানুষও দুর্বল হয়ে পড়ে এবং তাদের ওপর নির্যাতনের প্রেক্ষাপট তৈরি হয়। কাজেই মুসলমানদের নির্যাতিত হওয়ার জন্য প্রথমেই আমাদেরকে মুসলিম সভ্যতার পতনের দিকে দৃষ্টি দিতে হবে। যেসব কারণে এ সভ্যতার পতন হয় তার কয়েকটি হচ্ছে:

১. পূর্ণাঙ্গ জীবন বিধান ইসলামের শিক্ষা থেকে দূরে সরে যাওয়া;
২. মুসলিম দেশগুলোর সরকার ও জনগণের মধ্যে দ্বন্দ্ব ও বিভেদ ছড়িয়ে পড়া;
৩. মুসলিম দেশগুলোর পরস্পরের মধ্যে দ্বন্দ্ব-সংঘাত সৃষ্টি;
৪. মুসলমানদের মধ্যে কুসংস্কার ও বেদাত ছড়িয়ে পড়া ও তাদের মধ্যে জ্ঞান-বিজ্ঞান ও নতুন নতুন প্রযুক্তি উদ্ভাবনের আগ্রহ কমে যাওয়া;
৫. মুসলিম দেশগুলোতে উপনিবেশবাদী শক্তিগুলোর সর্বব্যাপী আগ্রাসন;
৬. মুসলমানদের মধ্যে ব্যাপকভাবে আস্থা ও আত্মবিশ্বাসের অভাব ছড়িয়ে পড়া;

অতীতের ঘটনাবলী বিশ্লেষণ করে বলা যায়, মুসলিম দেশগুলোর বর্তমান দুরবস্থার জন্য কিছু অভ্যন্তরীণ কারণ ছিল। অর্থাৎ মুসলমানরাই প্রথমত তাদের দুর্দশার জন্য দায়ী। সেইসঙ্গে যোগ হয়েছে আন্তর্জাতিক প্রেক্ষাপট ও সাম্রাজ্যবাদী শক্তিগুলোর আগ্রাসন ও ষড়যন্ত্র।
সূত্র: রেডিও তেহরান