মাত্র ১০০০ টাকায় ঘুরে আসুন বিছানাকান্দি

bichanakandiশহুরে গরম, জ্যাম আর ব্যস্ততায় যদি আপনি হাপিয়ে গিয়ে উঠে থাকেন। তাহলে আপনি যেতে পারেন কোনো গ্রামে, বনে-জঙ্গলে। খেতে পারেন করতে হাওরের তাজা মাছ। তবে এ ক্ষেত্রেই আপনার জন্য উপযুক্ত সময় এখনই। মাত্র একদিনে নামমাত্র খরচেই আপনি চলে যেতে পারেন আপনার পছন্দের জায়গায়। ভাবছেন এমন জায়গা আবার কোথায়?

ধরুন আপনি পাহাড় আর ঝর্ণা দেখতে চান পাহাড় থেকে নেমে আসা ঝর্ণার উচ্ছ্বাস, গরমে গাঁ ভেজাতে চান স্বচ্ছ পানিতে, ডুবে থাকতে ভালবাসেন ঠান্ডা জলে, তবে বিছানাকান্দি আপনার জন্য এক আদর্শ জায়গা।

হ্যাঁ আপনাকে আলাদা ছুটি নিতে হবে না, নেই খুব একটা ঝামেলা মাত্র দুই রাতের দারুণ, রোমাঞ্চকর, বিলাসী ট্রেন ভ্রমণ আর সারা দিনের আয়েশি নৌ ভ্রমণের পাশাপাশি যদি একই সঙ্গে উপভোগ করতে পারেন পাহাড়ের পর পাহাড়, পাহাড়ের সিঁড়ি, কোথাও সবুজ পাহাড় আর কোথাও নীল। যদি ভালোবাসেন, পাহাড়ের ভাঁজে-ভাঁজে ভেসে বেড়ানো সাদা-সাদা মেঘেদের দল, নীল আকাশ, কখনো ঝিরঝিরে বৃষ্টির পরশ তবে এই সময়ের বিছানাকান্দি আপনার জন্য এক আদর্শ ভ্রমণ স্পট।

কীভাবে যাবেন: অনেকে হয়তো পাহাড় তেমন একটা ভালোবাসেন না, ভালোবাসেন পানি, নদী, জলাশয় তবে তাই হোক, আপনি গোয়াইয়ান ঘাট থেকে নৌকা করেই যেতে পারবেন বিছানাকান্দি পর্যন্ত। আপনি ইচ্ছে করলে হাদারপাড় থেকে বিছানাকান্দি হয়ে পাংথুমাই পর্যন্ত এক নরম, আলতো ঢেউ খেলানো পিইয়ান নদীর টলমলে জলে ভেসে বেড়াতে পারেন দিনভর।

মাত্র ৩০০ টাকায় শোভন চেয়ারে করে ঢাকা থেকে সিলেট। স্টেশনে নেমে সিএনজি করে হাদারপাড় জনপ্রতি ১০০ টাকা শেয়ারে গেলে, আর রিজার্ভ গেলে ৪০০ থেকে ৫০০ টাকা। হাদারপাড় নেমে ট্রলারে করে জন প্রতি ১০০ টাকায় বিছানাকান্দির পথে, যেখানে আপনি একই সঙ্গে পাবেন, পাহাড়, পাথর, অরণ্য, নদী, ঝর্ণা আর বৃষ্টির অপরূপ প্যাকেজ।

নৌকায় বা ট্রলারে যেতে যেতেই হয়তো আপনাকে অভিবাদন জানাবে সিলেটের এক পশলা বৃষ্টি, পথে যেতে-যেতে একটু করে আলতো ছুঁয়ে দেবে ঝিরঝিরে বৃষ্টির জল, পাবেন দুইপাশ থেকে ছুঁটে চলা নৌকার অল্প ঢেউয়ের দোলা, সামনে তাকাতেই চোখে পড়বে নীল-সবুজ পাহাড়ের দেয়াল যেন মিশে আছে দূরের আকাশের সাথে, কেউ-কেউ পা ভেজাচ্ছে বয়ে চলা ঠান্ডা জলে, মেঘেদের দল উড়ে-উড়ে বেড়াচ্ছে এক পাহাড় থেকে আরেক পাহাড়ের কোলে। এক পাহাড় আরেক পাহাড়কে ঢেকে রেখেছে আলতো আর আদরের কুয়াশায়!

৩০-৪০ মিনিটেই পৌঁছে যাবেন ওপারের ঝর্ণা থেকে নেমে আসা স্বচ্ছ, টলটলে আর ঠান্ডা পানির নিচে পাথরের নরম বিছানার বিছানাকান্দিতে। নেমে পড়ুন একটু সাবধানে, পাথর কুচির আঘাত থেকে রক্ষা পেতে। শুরু করুন নিজের মতো উপভোগ আর উদযাপন।

চাইলে বেশ কিছুক্ষণ ডুবেও থাকতে পারেন বিছানাকান্দির পানিতে। ডুবে থাকা নরম পানির শীতল স্পর্শে। গোসল করে, দাপিয়ে ক্লান্ত হলে পাশের হোটেলেই খেয়ে নিতে পারেন দুপুরের খাবার। মাত্র ৮০ টাকা প্যাকেজে। সাথে বাথরুম ফ্রি। কারণ ওখানে খাবার না খেলে বাথ রুমের কাজ সারতে হলে গুনতে হবে ৫০ টাকা।

শেষ দুপুরে উঠে পড়ুন নৌকা বা ট্রলারে। শান্ত নদীতে ভেসে চলে আসুন হাদারপাড় বা একটু দূরের গোয়াইনঘাঁটে। আবারও একই রকমভাবে সিএনজি করে চলে আসুন সিলেট শহরে। কোনো একটা হোটেলে ঢুকে সেরে ফেলুন রাতের খাবার। এরপর রাত ১০টার জয়ন্তিকা ট্রেনে করে ঢাকার পথে।

খরচের হিসাব: ঢাকা থেকে ট্রেনে ২৭৫ টাকা, সিলেট থেকে হাদারপাড় ১০০ টাকা, নৌকায় হাদারপাড় থেকে বিছানাকান্দি ৫০/১০০ টাকা, সকালের নাস্তা ৪০ টাকা, দুপুরের খাবার বিছানাকান্দিতে ৮০ টাকা প্যাকেজ। ফেরা একই রকম ভাবে। মোটামুটি ১০০০ টাকায় আর মাত্র এক দিনেই পেতে পারেন একটি অন্য রকম ভ্রমণের স্বাদ। তবে একটু কষ্ট করার মানসিকতা থাকতে হবে, যারা ভ্রমণ ভালোবাসে, তাদের কাছে এটা কোনো ব্যাপারই নয়।