ভালো নেই সেই ইউএনও

UNOভালো নেই সন্ত্রাসী হামলায় গুরুতর আহত দিনাজপুরের ঘোড়াঘাটের উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ওয়াহিদা খানম। তার ডান পাশে শক্তি নেই, হাত নাড়াতে পারেন না। তবে অবস্থার উন্নতিতে ফিজিওথেরাপি চলছে। বুধবার (৯ সেপ্টেম্বর) এমনটাই জানালেন ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরোসায়েন্স হাসপাতালের নিউরো ট্রমা বিভাগের প্রধান ও ওয়াহিদার মেডিকেল বোর্ডের প্রধান ডা. মোহাম্মদ জাহেদ।

তিনি বলেন, ওয়াহিদার ডান পাশটা এখনও অবশ। চিমটি কেটে ব্যথা দিলে বুঝতে পারেন, স্পর্শ করলে বুঝতে পারেন। কিন্তু হাতের কোনো শক্তি নেই, হাত নাড়াতে পারেন না। অবস্থার উন্নতিতে ফিজিওথেরাপি চলছে। ফিজিওথেরাপি চলার পর কতটুকু উন্নতি হয় সেটা সময় হলে বুঝা যাবে বলেও জানান ডা. মোহাম্মদ জাহেদ।

এদিকে ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরোসায়েন্স হাসপাতালের যুগ্ম-পরিচালক অধ্যাপক ডা. বদরুল আলম জানান, ওয়াহিদার মাথার সেলাই আগামী শনিবার কাটা হতে পারে। সে পর্যন্ত তাকে হাসপাতালের এইচডিইউতেই (হাই ডিপেন্ডেন্সি ইউনিট) রাখা হবে। তিনি বলেন, তার পূর্ণ জ্ঞান রয়েছে, পরিবারের সদস্য এবং চিকিৎসকদের সঙ্গে কথা বলছেন। তাকে স্বাভাবিক খাবার দেয়া হচ্ছে বলেও জানান ডা. বদরুল।

প্রসঙ্গত, গত ২ সেপ্টেম্বর রাতে দিনাজপুরের ঘোড়াঘাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) ওয়াহিদা খানম ও তার বাবা ওমর আলীকে কুপিয়ে গুরুতর জখম করে দুর্বৃত্তরা। পরদিন সকালে আহত বাবা-মেয়েকে প্রথমে রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়া হয়। পরে ইউএনও ওয়াহিদাকে বিমানবাহিনীর হেলিকপ্টারে ঢাকায় আনা হয়। তিনি এখন ঢাকার আগারগাঁওয়ে ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব নিউরোসায়েন্স ও হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। এ হামলার ঘটনায় ইউএনও ওয়াহিদার ভাই শেখ ফরিদ বাদী হয়ে বৃহস্পতিবার রাতে ঘোড়াঘাট থানায় মামলা করেন।

দু’জনকে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে

ইউএনও ওয়াহিদা খানম ও তার বাবা ওমর আলীর ওপর হামলার ঘটনায় জিজ্ঞাসাবাদের জন্য আটক তিনজনের মধ্যে দু’জনকে ছেড়ে দিয়েছে পুলিশ। গত সোমবার দুপুরে ওই তিনজনকে আটক করে পুলিশ। এর মধ্যে দু’জনকে রাতেই ছেড়ে দেওয়া হয়।

ওই তিনজন হলেন- ইউএনওর ওপর হামলার ঘটনায় হওয়া মামলার এজাহারভুক্ত প্রধান আসামি আসাদুল ইসলামের বড় ভাই আশরাফুল ইসলাম, ইউএনওর গাড়িচালক (উপজেলা ভূমি কার্যালয়ের গাড়িচালক হিসেবে নিযুক্ত) ইয়াসিন আলী এবং ইউএনওর বাসভবনের পরিচ্ছন্নতাকর্মী অরসোলা হেমব্রম। তাদের মধ্যে আশরাফুল ও অরসোলাকে জিজ্ঞাসাবাদ শেষে ছেড়ে দেওয়া হয়েছে।