পাউরুটি আর জীবনে খাবেন না! কেন খাবেন না জেনে নিন

FBব্রেকফাস্ট হোক বা বাচ্চার স্কুলের টিফিন। জ্যাম-পাউরুটি বা মাখন-পাউরুটি বা স্লাইচ ছাড়া চলে না? সময় বাঁচানোর জন্য এমনকি আমরা বিকেলের নাস্তাও অনেক সময় পাউরুটি দিয়ে করি। কিন্তু এই পাউরুটি আমাদের দেহের জন্য কতটা ক্ষতিকর জানলে আপনি জীবনেও আর পাউরুটি খাবেন না। আমি নিজেও আর পাউরুটি কিনি না। বাচ্চাদেরও খেতে দেই না। আসুন জেনে নেই, পাউরুটির ক্ষতিকর দিকগুলি-

প্রথমত: পাউরুটি, বার্গার বান সহ সকল প্রকার ব্রেড ধবধবে সাদা এবং ফুলে ওঠার জন্য যে কেমিক্যাল ব্যবহার করা হয় সেটা হলো পটাশিয়াম ব্রমেট পাউডার। আমাদের দেশে পটাশিয়াম ব্রমেট বিক্রি হয় ব্রেড ইম্প্রভার হিসেবে। আর এই Potassium bromate (KBrO3) ক্যানসার এবং কিডনি নষ্ট করে বলে পৃথিবীর অনেক দেশে ব্যান করা হয়েছে বলে জানিয়েছেন নিরাপদ খাদ্য কর্তৃপক্ষের সদস্য মাহবুব কবির মিলন।

তিনি জানান, শ্রীলঙ্কা ২০০১ সালে, চায়না ২০০৫ এবং ভারত ২০১৬ সালে Potassium bromate (KBrO3) ব্যান করে । পটাসিয়াম ব্রোমেট ক্লাস ২ কার্সেনোজেনিক বলে চিহ্নিত। এটি অতিরিক্ত পরিমাণে শরীরে গেলে ক্যানসারের সম্ভাবনা থাকে। পটাসিয়াম আয়োডেটের প্রভাবে থাইরয়েডের সমস্যাও হতে পারে।

দ্বিতীয়ত: বিশেষজ্ঞরা বলছেন, যে সব শস্য থেকে পাউরুটি তৈরি হয় তা খেলে অনেকসময় পরে অম্বল হওয়ার সম্ভাবনা বেড়ে যায়। লবন ও সোডিয়ামের পরিমাণ বেশি থাকার কারণে হজম হতেও অনেক বেশি সময় লাগে। পাউরুটি তৈরির সময় যে ফ্লেভার মেশানো হয়, তা অনেক ক্ষেত্রেই স্বাস্থ্যের পক্ষে ক্ষতিকর হতে পারে।

পাউরুটি তৈরির সময় আটা থেকে অনেক ধরনের পুষ্টি উপাদান বাদ চলে যায়। ফলে, পাউরুটিতে পরিমিত ফাইবার থাকে না। শরীরে কার্বন ডাই অক্সাইড ও ব্রোমাইন জাতীয় বিষাক্ত যৌগ জমা হয়। প্রতিদিন পাউরুটি খেলে ওজন বেড়ে যাওয়ার সম্ভাবনা বেড়ে যায় বলে দাবি বিশেষজ্ঞদের। কারণ, পাউরুটিতে রয়েছে লবন, রিফাইন্ড চিনি ও বিভিন্ন প্রিজারভেটিভস।