তিরুপতি মন্দির মাসে কোটি কোটি টাকা রোজগার শুধুমাত্র চুল দিয়ে

MONDERদাক্ষিণাত্যের ঐতিহ্য আর সারা ভারতের বিশ্বাস ৷ অন্ধ্রপ্রদেশের ভেঙ্কটেশ্বর তিরুপতি তিরুমালা মন্দির নিয়ে মানুষের বিশ্বাস বহুযুগ, বহুদিন ধরে চলে আসছে ৷ এই মন্দিরে রয়েছেন স্বয়ং নারায়ণ, তিরুপতিদেব ৷মনস্কামনা পূর্ণ করতে তিরুপতির কাছে মাথার চুল মানত করেন ভক্তরা ৷ ইচ্ছা পূরণ হলে সেই চুল ত্যাগ করে পুজো দেন ৷

এই রীতি চলে আসছে বহুযুগ ধরে ৷ আর তাই প্রতি মাসেই কেজি কেজি চুল জমা হয় এই মন্দিরে ৷সেই চুল বিক্রি করে মোটা টাকা আসে মন্দিরের কোষাগারে ৷ এ মাসেও শুধুমাত্র মানুষের মানত দেওয়া চুল বিক্রি করে ৭ কোটি ৮৪ লক্ষ টাকা আয় করেছে তিরুপতি মন্দির ৷ অগস্ট মাসের এই আয়ের হিসাব জানিয়েছে Tirumala Tirupati Devasthanams (TTD) ৷এ মাসে চুলের পরিমাণ ছিল ৫,৬০০ কেজি ৷ তিনটি আলাদা আলাদা ভাগে চুলের নিলাম হয়েছিল ৷

আর সাদা বা পাকা চুলের নিলাম হয়েছিল আরও একটি আলাদা ভাগে ৷ প্রথম ভাগে ছিল ৩১ ইঞ্চি ও তার থেকে লম্বা চুলের নিলাম ৷ দ্বিতীয় ভাগে ১৬-৩০ ইঞ্চি দৈর্ঘ্যের চুলের নিলাম, তৃতীয় ভাগে ১০-১৫ ইঞ্চি চুলের নিলাম হয়েছিল ৷• এর পাশাপাশি আরও ৮,৩০০ কেজি চুল রেখে দেওয়া হয়েছে ই-নিলামের জন্য ৷ এর প্রতি কেজির দাম ২২,৪৯৪ টাকা ৷ এর মধ্যে থেকে এখনও পর্যন্ত ১৬০০ কেজি বিক্রি হয়েছে ৷ পাওয়া গিয়েছে ৩ কোটি ৫৬ লক্ষ টাকা ৷ দ্বিতীয় গ্রেড চুলও ৩৭,৮০০ কেজি রাখা আছে ই-নিলামের জন্য ৷ এর প্রতি কেজির দাম ১৭,২২৩ টাকা ৷ ২০০০ কেজি এখনও পর্যন্ত বিক্রি হওয়ায় কোষাগারে এসেছে ৩ কোটি ৪৪ লক্ষ টাকা ৷ সব থেকে কম দাম তৃতীয় ভাগ চুলের ৷ প্রতি কেজি ৩,০১৪ টাকা ৷

ই-নিলামের জন্য এই গ্রেডের চুল মজুত রয়েছে ৮০০ কেজি ৷ এখনও পর্যন্ত এই চুল ই-নিলামে বিক্রি করে আয় হয়েছে ২৪ লক্ষ ১১ হাজার টাকা ৷ মোট ৬,৭০০ কেজি পাকা চুল ই-নিলাম করা হবে ৷ এর দাম প্রতি কেজি ৫,৪৬২ টাকা ৷১২০০ কেজি বিক্রি করে এখনও পর্যন্ত আয় হয়েছে ৬৬ লক্ষ ৫৫ হাজার টাকা ৷