এবার টেলি সামাদের লাশ নিয়ে দুই সতিনের কি ঝগড়া

talisamad

না ফেরার দেশে চলে গেছেন কিংবদন্তি কৌতুক অভিনেতা টেলি সামাদ। চলছে তার শেষ বিদায়ের প্রস্তুতি।

তবে ইতোমধ্যেই শুরু হয়েছে তার জানাজা নিয়ে পারিবারিক দ্বন্দ্ব।

টেলি সামাদের প্রথম জানাজা তার বাসা পশ্চিম রাজাবাজারে বাদ মাগরিব হওয়ার কথা থাকলেও হুট করেই ঘোষণা করা হয় জানাজা অনুষ্ঠিত হবে বাদ এশা।

আর এনিয়েই টেলি সামাদের দ্বিতীয় পক্ষের স্ত্রী ও ছেলের সঙ্গে প্রথম পক্ষের মেয়ের বাকবিতণ্ডা শুরু হয়েছে।

শেষবারের মতো বাবাকে দেখতে এসেছিলেন তার দ্বিতীয় স্ত্রী ও ছেলে দিগন্ত।

বাবাকে শেষবার দেখার জন্য হাসপাতালে আসলেও বাবার লাশের সামনে যেতে পারেননি তিনি।

দিগন্ত বলেন, বাবা মারা গেছে। বাবাকে দেখতে মাকে সাথে নিয়ে আসছি। এসে শুনে বাবাকে দেখাবে না তারা।

একজন মৃত ব্যক্তিকে দেখতে দিচ্ছে, না এটা সত্যি দুঃখজনক।

টেলি সামাদের মেয়ে সোহেলি সামাদ কাকলী জানান, শনিবার বাদ এশা রাজধানীর পশ্চিম রাজা বাজার টেলি সামাদের প্রথম জানাজা অনুষ্ঠিত হবে।

talisamad (2)

এরপর ফ্রিজিং গাড়িতেই মরদেহ রাখা হবে। আগামীকাল বেলা ১১টায় এফডিসিতে দ্বিতীয় জানাজা শেষে মরদেহ নেয়া হবে গ্রামের বাড়ি মুন্সিগঞ্জের নয়াগাঁও।

সেখানে জানাজা শেষে সমাহিত করা হবে তার মরদেহ।

প্রসঙ্গত, ১৯৪৫ সালের ৮ জানুয়ারি ঢাকার বিক্রমপুরে জন্মগ্রহণ টেলি সামাদ। ১৯৭৩ সালে ‘কার বউ’ দিয়ে তার চলচ্চিত্রে অভিষেক হয় টেলি সামাদের।

গত চার দশকে ৬০০ চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন তিনি। সর্বশেষ অভিনীত চলচ্চিত্র ছিল ২০১৫ সালে মুক্তি পাওয়া ‘জিরো ডিগ্রি’।

কমেডিয়ান হিসেবে বেশিরভাগ দর্শক টেলি সামাদকে চিনলেও প্রায় ৪০টির বেশি চলচ্চিত্রে প্লেব্যাক করেছেন তিনি।

বাংলাদেশের চলচ্চিত্রের অত্যন্ত শক্তিশালী ও জনপ্রিয় কৌতুক অভিনেতা টেলি সামাদের জন্ম ২০ ডিসেম্বর মুন্সীগঞ্জ শহরের পাশের নয়াগাঁও গ্রামে।

সাংস্কৃতিক পরিমণ্ডলে বেড়ে ওঠা টেলি সামাদের বড়ভাই বিখ্যাত চারুশিল্পী আব্দুল হাইয়ের পদাঙ্ক অনুসরণ করে পড়াশোনা করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলায়।

সংগীতেও রয়েছে এই গুণী অভিনেতার পারদর্শিতা। ‘মনা পাগলা’ ছবির সংগীত পরিচালনা করেছেন তিনি।

১৯৭৩ সালে ‘কার বউ’ দিয়ে তার চলচ্চিত্রে পা রাখা। চার দশকে ৬০০ চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন।