জেনে নিন ব্যায়াম ও ডায়েট ছাড়াই ওজন কমানোর সবচেয়ে সহজ উপায়

waitওজন কমানোর ক্ষেত্রে কোনো একটি উপায় সবার কাজে আসে না। কারো কারো ডায়েট করে উপকার হয়, কেউ কেউ ব্যায়াম করে উপকার পান। এসবের পাশাপাশি আপনি আরো একটি পদ্ধতিতে ওজন কমাতে পারেন, আর তা হলো মেডিটেশন বা ধ্যান।

আপনার কাছে অবাক লাগতে পারে, ভাবতে পারেন, ধ্যান তো মানসিক প্রশান্তি নিয়ে আসে, এটা কী করে ওজন কমাতে পারে? রহস্যটা হলো, প্রতিদিনকার জীবনে নিজেকে সুস্থ রাখার জন্য যে মানসিক শক্তিটা দরকার, সেটা আপনি পেতে পারেন ধ্যান থেকে।

পুষ্টিবিদ কিম্বারলি স্নাইডার প্রচুর মানুষের সাথে কাজ করেছেন ওজন নিয়ন্ত্রণ করতে। তিনি দেখেন, এই প্রক্রিয়ায় গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে ধ্যান বা মেডিটেশন। নিজের আশেপাশের পরিবর্তন যেন আপনার খাদ্যভ্যাস এবং ওজন নিয়ন্ত্রণের পথে বাধা তৈরি করতে না পারে, সেক্ষেত্রে আপনাকে সাহায্য করবে মেডিটেশন।

ওজন বাড়ার জন্য যে ব্যাপারটা বেশিরভাগ ক্ষেত্রে দায়ী, তা হলো অতিরিক্ত খেয়ে ফেলা। অতিরিক্ত খাওয়ার জন্য কিন্তু আমাদের আবেগ-অনুভুতিকেই দায়ী করা যায়। এ কারণে নিজের মানসিক অবস্থাকে স্থিতিশীল রাখার মাধ্যমে ওজন কমাতে কাজে আসে কিছু ধ্যান। এসব মেডিটেশন যে কোনো সময়ে, যে কোনো জায়গায় করতে পারেন আপনি। চলুন দেখে নিই খাওয়া কমিয়ে ওজন নিয়ন্ত্রণে সাহায্য করতে পারে এমন তিনটি মেডিটেশনের উপায়-

১) অপরিকল্পিত ডায়েটিং বাদ দেবার মেডিটেশন

ইন্টারনেটে খুঁজলে আপনি শত শত ডায়েটিং মেথড দেখতে পারবেন। এই মাসে একটি ডায়েট শুরু করলেন তো পরের মাসে মনে হবে আরেকটি শুরু করি। এভাবে আসলে কোনো ডায়েটই আমরা ধরে রাখতে পারি না, কোনটারই সুফল পাই না। এই ধ্যানটি এমন এলোমেলো অবস্থা থেকে আপনাকে বের হয়ে আসতে সাহায্য করবে। আপনি নিজে কী করে ওজন কমাতে চান সেদিকে মন দিতে এবং আশেপাশের মানুষ কি করছে তা অগ্রাহ্য করতে কাজে আসবে।

যা করতে হবে –

মেঝেতে পা ভাঁজ করে আরামদায়ক অবস্থানে বসুন। আপনার মেরুদন্ড সোজা রাখুন। মেঝের সাথে সমান্তরাল রাখুন আপনার থুতনি। চোখ বন্ধ করুন।

বাম হাত পেটের ওপর এবং ডান হাত হৃৎপিণ্ডের ওপর রাখুন।

ধীরে ধীরে গভীর শ্বাস নিন। নিজের শরীরকে কল্পনার চোখে দেখুন। ভাবুন, আপনার হৃৎপিণ্ড থেকে পেটে এরপর আবার পেট থেকে হৃৎপিণ্ডে আসছে আপনার নিঃশ্বাস, পেট ও হৃৎপিণ্ড একে অপরের সাথে এভাবে যুক্ত।

এভাবে ১০ বার নিঃশ্বাস-প্রশ্বাসের পর হাত নামিয়ে উরুর ওপর রাখুন, কিন্তু নিঃশ্বাস নিতে থাকুন একইভাবে। সবশেষে আবার বাম হাত পেটে ও ডান হাত হৃৎপিণ্ডের ওপর রাখুন।

২) স্ট্রেস ইটিং কমানোর মেডিটেশন

জীবনে যখন প্রচন্ড স্ট্রেস যাচ্ছে, নিজের জন্য একটুও সময় পাচ্ছেন না, তখন তেল চুপচুপে ভাজা খাবার, বেশি করে মশলা বা চিনি দেওয়া খাবার একটু বেশিই আকর্ষণীয় লাগে। এই মেডিটেশনটি করলে আপনার স্ট্রেস কমে আসবে এবং অস্বাস্থ্যকর খাবারের প্রতি আকর্ষণটি কমে আসবে।

যা করতে হবে –

আগের মতই মেঝেতে পা ভাঁজ করে আরামদায়ক অবস্থানে বসুন। আপনার মেরুদন্ড সোজা রাখুন। মেঝের সাথে সমান্তরাল রাখুন আপনার থুতনি। চোখ বন্ধ করুন।

নাক দিয়ে গভীর করে কিছু নিঃশ্বাস নিন। প্রতিটি নিঃশ্বাসের সাথে আপনার পেটের ওঠানামাকে অনুভব করুন। শ্বাস ছাড়ার সময়ে কল্পনা করুন আপনার পুরো শরীর থেকে স্ট্রেস বের হয়ে যাচ্ছে বাতাসের সাথে।

নিজের মাথা থেকে পা পর্যন্ত কোথায় স্ট্রেস আছে, কল্পনা করুন। চিন্তা করুন একটু একটু করে নিঃশ্বাসের সাথে চলে যাচ্ছে এই স্ট্রেস। নিজের মনোযোগ নিয়ে আসুন দুই ভ্রুর মাঝখানে। ভাবুন, শান্তির একটা অনুভূতি ছড়িয়ে পড়ছে সারা শরীরে।

৩) ইমোশনাল ইটিং কমানোর মেডিটেশন

আপনার আবেগের প্রভাব পড়ে স্নায়ুতন্ত্রের ওপর, আর তখনই আমাদের ইচ্ছে করে বেশি বেশি ফ্যাটি খাবার খেতে। আপনি যখন আবেগ নিয়ন্ত্রণ করতে পারছেন না, তখন দেখবেন বেশি বেশি অস্বাস্থ্যকর খাবার খাওয়া হয়ে যায়। এই সমস্যাটি থেকে বের হয়ে আসার মেডিটেশন দেখে নিন-

যা করতে হবে –

আগের মতই মেঝেতে পা ভাঁজ করে আরামদায়ক অবস্থানে বসুন। আপনার মেরুদন্ড সোজা রাখুন। মেঝের সাথে সমান্তরাল রাখুন আপনার থুতনি। চোখ বন্ধ করুন।

হাতের তালু ওপরের দিকে দিয়ে হাঁটুর ওপর রাখুন। গভীর শ্বাস নিন। শ্বাস টানার সময়ে হাতের আঙ্গুল ভেতরের দিকে ভাঁজ করুন, আর শ্বাস ছাড়ার সময়ে আবার আঙ্গুল খুলে দিন। কয়েকবার এমনটা করার পর আঙ্গুল স্থির রাখুন, কিন্তু গভীর নিঃশ্বাস নিতে থাকুন। কল্পনা করুন, আপনার প্রাণশক্তি (ধ্যানের ভাষায় ‘চি’) আপনার মাথার তালু থেকে শরীরের বাকি সব অঙ্গে ছড়িয়ে পড়ছে, পুরো শরীরকে প্রাণবন্ত করে তুলছে, দূর করছে রোগশোক। কয়েক দফা নিঃশ্বাস-প্রশ্বাস শেষে হৃৎপিণ্ডের সামনে হাত এনে করজোড় করে ধরুন। নিজের জীবনের জন্য কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করুন।