করোনা দূর্যোগে মানুষের পাশে সব রাজনৈতিক দলকে দাঁড়াতে হবে-এম এ বাশার

basharবর্তমান বৈশ্বিক মহামারির কবলে মানব জাতি৷কোভিড-১৯, করোনা ভাইরাসে বাংলাদেশ আজ বিপর্যস্ত৷

দেশের সরকার প্রধান সহ ব্যাক্তি উদ্যোগে অনেকেই সাধারন মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছেন৷

আসন্ন পবিত্র ঈদ-উল- ফিতর নিয়ে এলডিপির পক্ষ থেকে দেশবাসীকে শুভেচ্ছা জানাতে গিয়ে গনমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে দলটির মহাসচিব শাহাদত হোসেন সেলিম বলেন- ঢাকা ছাড়া যাবে না, ফেরী চলাচল বন্ধ ।

আবার ঢাকা ছাড়া যাবে, তবে ব্যক্তিগত গাড়িতে৷সরকারের পরষ্পর বিরোধী এই ধরনের সিদ্ধান্তে ঈদেও মহাবিপর্যয়ে আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।

যারা ঢাকা ছেড়ে যাবেন তারা অধিকাংশ শ্রমজীবী নিম্ন আয়ের মানুষ। এত ব্যক্তিগত গাড়ি তারা কোথায় পাবেন ? তাহলে গণপরিবহন বন্ধ কেন? কারা দিনরাতের ব্যবধানে এসব পরস্পরবিরোধী সিদ্ধান্ত নেন, কেন লক্ষ লক্ষ মানুষকে এভাবে চূড়ান্ত ঝুঁকির মধ্যে ঠেলে দেয়া হচ্ছে, কারা এর উত্তর দেবেন?

দলের যুগ্ম মহাসচিব এম এ বাশার বলেন, দীর্ঘ এক মাস সিয়াম সাধনার মধ্যদিয়ে সংযম ও সহমর্মিতার শিক্ষায় সমুজ্জল ঈদ-উল- ফিতর বিশ্ব মুসলিমের দ্বারে সমুপস্থিত।

সারা বিশ্বে করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের কারণে এ বছর ঈদ কিছুটা ভিন্ন আঙ্গিকে উদযাপন করতে হবে। ব্যক্তিগতভাবে স্বাস্থ্য সতর্কতা প্রতিপালনে বিশেষ গুরুত্বারোপ করতে হবে।

এর মধ্যে বাংলাদেশে যোগ হয়েছে সাম্প্রতিক আম্ফানের ক্ষয়ক্ষতি। চলমান দুর্যোগ মোকাবলোয় মাহে রমজানের ধৈর্য্য ও সহমর্মিতার শিক্ষাকে কাজে লাগাতে হবে।জনাব বাশার আরও বলেন,করোনা মোকাবেলায় সব রাজনৈতিক দল যদি ঐক্যবদ্ধ না হয় তাহলে দেশ আরও ক্ষতির সম্মুখিন হবে৷

করোনা মোকাবেলায় শুধু মুখের কথায় কাজ হবেনা বাস্তবে তার প্রয়োগ হতে হবে বলে মনে করেন বিশদলীয় জোটের প্রভাবশালী এই নেতা৷

নেতৃদ্বয় পবিত্র ঈদ-উল-ফিতরকে সামনে রেখে করোনার প্রাদুর্ভাবে মৃত্যুবরণকারীদের রুহের মাগফেরাত কামনা ও শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি সমবেদনা জ্ঞাপন করেন৷

পারস্পরিক সহযোগিতা, সহমর্মিতা ও মহান আল্লাহর সাহায্যের মাধ্যমে বিশ্ববাসী চলমান সংকট ও মহাদুর্যোগ উত্তরণে সক্ষম হবে বলে আশা করেন।পুরো রমজান মাসব্যাপী বিশদলের প্রধান তারেক রহমানের নির্দেশে জনাব শাহাদত হোসেন সেলিম ও এম এ বাশার তার রাজনৈতিক এলাকায় এবং রাজদানীতেও ত্রাণ সামগ্রী বিতরন করা সহ নিম্ন আয়ের মানুষের মাঝে নগদ অর্থ বিতরন করেন৷