এমপি রানার জামিনে টাঙ্গাইলে মিষ্টি সংকট,আনন্দে ভাসছে টাঙ্গাইল

received_10206580613392979টাঙ্গাইল-৩ ঘাটাইল আসনের সাংসদ আমানুর রহমান খান রানার জামিনের সংবাদে অত্র এলাকার আপামর জনগনের মাঝে আনন্দের জোয়ার বইছে এবং এ আনন্দে টাঙ্গাইল সদর এবং তার নির্বাচনী এলাকায় মিষ্টি বিতরন করেছে স্থানীয় জনগন।

স্থানীয় নেতা কর্মী এবং খান পরিবারের শুভাকাঙ্খিরা এ জামিনের আদেশকে টাঙ্গাইল আওয়ামী লীগের ঐতিহাসিক বিজয় বলে উল্লেখ করেছেন। এমপি রানা এবং তার পরিবার কেমন তা জানতে হলে আজ দেশবাসীকে টাঙ্গাইল আসার আমন্ত্রণ জানিয়ে বলেন, আজ টাঙ্গাইলে সব মিষ্টির দাকানে মিষ্টি সংকট, জনগন তাদের নিজ উদ্যেগে মিষ্টি কিনছে এবং বিতরন করছে।ব্যাক্তি রানা তার নিজ কর্মগুনে জনগনের মনে জায়গা করে নিয়েছেন বলেই টাঙ্গাইলের সর্বত্র উৎসবের আমেজ বিরাজ করছে। এ প্রসঙ্গে টাঙ্গাইলের কৃতি সন্তান ও বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির যুগ্ন সাধারন সম্পাদক মাহমুদুল হাসান বলেন, “সর্বপ্রথম আমি হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের যোগ্য কন্যা বিদ্যানন্দিনী প্রানপ্রিয় নেত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনাকে ধন্যবাদ জানাই।

সাংসদ আমানুর রহমান খান রানা ভাইয়ের ষড়যন্ত্র মূলোক মামলায় কারা-অন্তরীন হওয়াতে টাঙ্গাইল আওয়ামী লীগের রাজনীতিতে শূন্যতা সৃষ্টি হয়েছিল, তার জামিনে রাজপথের রাজনীতি বেগবান হবে এবং আগামীতে ৭১ এর পড়াজিত শক্তির দোসর বিএনপি জামাতের ষড়যন্ত্র রুখে দেয়া সহজ হবে”।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, মুক্তিযোদ্ধা ফারুক হত্যা মামলায় একটি গোষ্ঠী ষড়যন্ত্রের মাধ্যমে টাঙ্গাইলের ঐত্যিয্যবাহী খান পরিবারের সন্তান, বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের পরিক্ষীত রাজপথের লড়াকু সৈনিক রানাকে কারা অন্তরীন করে রাখা হয়।

কয়েক দফা ব্যর্থ হওয়ার পর মুক্তিযোদ্ধা ফারুক আহমেদ হত্যা মামলায় টাঙ্গাইল-৩ আসনের আওয়ামী লীগের সংসদ সদস্য (এমপি) আমানুর রহমান খান রানাকে অন্তর্বর্তীকালীন জামিন দিয়েছেন হাইকোর্ট।

বৃহস্পতিবার (১৩ এপ্রিল) বিচারপতি মিফতাহ উদ্দিন চৌধুরী ও বিচারপতি এ এন এম বসির উল্লাহর হাইকোর্ট বেঞ্চ এ আদেশ দেন।আদালতে এমপি রানার পক্ষে শুনানি করেন আইনজীবী আবদুল বাসেত মজুমদার।

এমপি রানার জামিনে টাঙ্গাইলের আওয়ামী লীগে যে প্রানসঞ্চার  হয়েছে তা অব্যাহত থাকলে ২০ দলীয় জোটের পক্ষে টাঙ্গাইল জেলা আওয়ামী লীগের বিপরীতে রাজনীতি করা অনেকটাই কঠিন হয়ে যাবে।