এবার লন্ডন থেকে‘ফণী’ মনিটর করছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

pm

সরকারি সফরে বর্তমানে লন্ডনে অবস্থানরত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঘূর্ণিঝড় ‘ফণী’ শুক্রবার বিকেলে বাংলাদেশ উপকূলে আঘাত হানার আশঙ্কার প্রেক্ষাপটে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে সকল পূর্ব সতর্কতামূলক পদক্ষেপ গ্রহণের নির্দেশ দিয়েছেন।

প্রধানমন্ত্রীর প্রেস সচিব ইহসানুল করিম বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ঘূর্ণিঝড় ‘ফণী’ আঘাত হানলে জানমালের ক্ষয়ক্ষতি কমানোর জন্য সকল বিভাগকে সব ধরনের পূর্ব সতর্কতামূলক পদক্ষেপ গ্রহণ করতে বলেছেন।

foni

সবাইকে সতর্ক থাকার নির্দেশ দিয়েছেন।

তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী ব্রিটের রাজধানী থেকে ঘূর্ণিঝড়ের আশঙ্কা থেকে উদ্ভূত পরিস্থিতি সার্বক্ষণিকভাবে মনিটর করছেন।

এদিকে আবহাওয়া অধিদপ্তরের এক সংবাদ বুলেটিনে বলা হয়, অত্যন্ত প্রচণ্ড ঘূর্ণিঝড় ‘ফণী’ এখন বঙ্গোপসাগরের পশ্চিম-মধ্যঞ্চল ও তৎসংলগ্ন এলাকায় অবস্থান করছে।

jor (2)

বুলেটিনে বলা হয়, মংলা ও পায়রা সমুদ্র বন্দরকে সাত নম্বর বিপদ সংকেত দেখানো হয়েছে।

চট্টগ্রাম সমুদ্র বন্দরকে ৬ নম্বর বিপদ সংকেত এবং কক্সবাজার সমুদ্র বন্দরকে ৪ নম্বর হুঁশিয়ারি সংকেত দেখাতে বলা হয়েছে।

বুলেটিনে আরো বলা হয়, অত্যন্ত প্রবল ঘূর্ণিঝড় বঙ্গোপসাগরের পশ্চিম-মধ্যঞ্চল ও তৎসংলগ্ন এলাকার ওপর দিয়ে আরো উত্তর-উত্তরপূর্ব দিকে অগ্রসর হয়েছে।

jor

আঘাত হেনেছে শক্তিশালী ঘূর্ণিঝড় ফণী। এর প্রভাবে ভারতের অন্ধ্র প্রদেশের বিশাখাপত্তনমে ১১০ কিলোমিটার বেগে বাতাস বইছে। সেই সঙ্গে হচ্ছে তুমুল বৃষ্টি।

ভারতীয় গণমাধ্যম নিউজ এইট্টিন এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে, তীব্র বাতাসে অঞ্চলটির বাসিন্দাদের স্বাভাবিক কার্যক্রম ব্যাহত হচ্ছে।

জীবন বাঁচাতে নিরাপদে আশ্রয় নিচ্ছে সবাই।

foni2

ফণীর বাতাসের তোড়ে বিভিন্ন রাস্তার পাশে গাছ এবং ইলেকট্রিক খুঁটি উপড়ে পড়েছে।

এরই মধ্যে উপকূলীয় এলাকায় কাঁচা বাড়ির বাসিন্দাদের আশ্রয়কেন্দ্রে সরিয়ে নেয়া হচ্ছে।

প্রতিটি ব্লকে খোলা হয়েছে কন্ট্রোল রুম। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণ করতে প্রস্তুত আছে পুলিশ-প্রশাসন।

 

অতি প্রবল ঘূর্ণিঝড় ফণী এখন মোংলা সমুদ্রবন্দর থেকে ৯১৫ কিলোমিটার দূরে অবস্থান করছে।

foni

কেন্দ্রের চারপাশে বাতাসে ঘণ্টায় ১৭০ কিলোমিটার বেগ তুলে এটি এখন এগুচ্ছে বাংলাদেশের উপকূলে।

তবে কখনও কখনও এই বেগ ঘণ্টায় ২০০ কিলোমিটার পর্যন্ত বৃদ্ধি পাচ্ছে।

আবহাওয়া অধিদপ্তর বলেছে, আগামীকাল সন্ধ্যায় এই ঘূর্ণিঝড় বাংলাদেশে আঘাত হানতে পারে।

এদিকে ফণীর কারণে আগামী ৩ ও ৪ মে নৌপরিবহন মন্ত্রণালয় এবং এর অধীনস্ত সংশ্লিষ্ট দপ্তর খোলা থাকবে।