এবার প্রধানমন্ত্রীত্ব হারাতে বসেছেন ইমরান খান

imran khan

মহা বিপাকে ইমরান খান, চলে যেতে পারে প্রধানমন্ত্রীত্ব! পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের ক্ষমতাচ্যু করার জন্য লাহোর হাইকোর্টে একটি রিট আবেদন করা হয়েছে।

এই রিট আবেদনে বলা হয়েছে ইমরান খান পাকিস্তানের সংবিধানের অনুচ্ছেদ ৬২ এবং ৬৩-র আইন লঙ্ঘন করেছেন।

২০১৮ সালে দেশটির নির্বাচনের মনোনয়নপত্র পেতে নিজের এক মেয়েকে গোপণ করেছে। সেই কারণেই তাকে অযোগ্য ঘোষণা করার দাবি তোলা হয়েছে।

সোমবার (১১ মার্চ) সেই রিট আবেদনের দিন ধার্য করেছে লাহোর হাইকোর্ট। ধারণা করা হচ্ছে এবার ঘোর সঙ্কটে পড়তে যাচ্ছেন পাকিস্তানের ইমরান খান। চলে যেতে পারে প্রধানমন্ত্রীত্বের গদিও।

গত শনিবার পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের বিরুদ্ধে লাহোর হাইকোর্টে একটি আবেদন করা হয় বলে জানা গেছে।

সোমবার রিটের শুনানি হবে বলে এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে দেশটির সংবাদমাধ্যম ডন।

ডনের এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, অনা-লুইসা (সীতা) হোয়াইট ছিলেন ইমরান খানের প্রাক্তন প্রেমিকা।

তার মেয়ে টাইরিন জেট হোয়াইট খানকে ইমনার খানের মেয়ে দাবি করা হয়।

বলা হচ্ছে ইমরান খান ২০১৮ সালের নির্বাচনেন মনোনয়ন পত্রে এই বিষয়টি গোপণ করেছেন।

সীতা হোয়াইট ইমরানের প্রাক্তন প্রেমিকা বলা হয়। এই বিষয়ে ইমরান কে আগেও একাধিকবার প্রশ্ন করা হয়েছে তবে সে কোনো উত্তর দেননি।

এছাড়া সীতা হোয়াইটও ইমরান খান কে তার মেয়ের বায়োলজিকাল বাবা বলেছে।

সীতা হোয়াইট অনেক বড় এক ব্যবসায়ীর মেয়ে। তিনি এখন এই পৃথিবিতে নেই।

বলা হয় লর্ড গার্ডন হোয়াইট তার মেয়ে সীতা কে বলেছিলেন ইমরান কে বিয়ে করলে তাকে সম্পত্তির কোনও অংশ দেবেন না। তার পরেই তাদের বিয়ে আটকে যায়।

জানা গেছে, হাইকোর্টে ওই পিটিশনে তাকে অযোগ্য আখ্যা দেওয়ার দাবি উঠেছে।

তবে তার বিরুদ্ধে সৎ এবং ধর্মপরায়ন না হওয়ার পাশাপাশি ২০১৮ সালের সাধারণ নির্বাচনের মনোনয়ন পত্রতে এক মেয়ের বাবা হওয়ার কথা গোপন করার অভিযোগ আনা হয়েছে।

এই রিটের শুনানির জন্য রাজি হয়ে রিট আবেদন গ্রহণ করে লাহোর হাইকোর্ট। তাকে অযোগ্য ঘোষণা করার আবেদনের শুনানি সোমবার (১১ মার্চ) হবে বলে জানা যায়।

এই রিট আবেদনে বলা হয়েছে সংবিধানের ৬২ ও ৬৩ অনুচ্ছেদ অনুযায়ী ২০১৮ সালে দেশটির নির্বাচনের মনোনয়নপত্র পেতে নিজের এক মেয়েকে গোপণ করেছে।

পাকিস্তানের সংবিধানের আইন লঙ্ঘন করেছেন। এই অনুচ্ছেদে সাংসদ সদস্য এর জন্য সত এবং ধর্মপরায়ণ হওয়ার শর্ত দেওয়া রয়েছে।