এখনো যেভাবে শেষ ১৬ তে যেতে পারে আর্জেন্টিনা , বিস্তারিত

argentinaদারুণ মিডফিল্ড নিয়ে ম্যাচের শুরুতেই আক্রমণ করতে থাকে ক্রোয়েশিয়া। ম্যাচের ৪ মিনিটেই এগিয়ে যেতে পারতো ক্রোয়েশিয়া। কিন্তু পেরেসিচের বা পায়ের শট আঙুলের টোকায় রক্ষা করেন আর্জেন্টাইন গোলরক্ষক কাবায়েরো। ১২ মিনিটে মেসিও সুযোগ পেয়েছিলেন গোলের। সতীর্থের মাথার উপর দিয়ে চিপ করা বলে পা ছোঁয়াতে ব্যর্থ হন এই বার্সা তারকা।

২১ মিনিটে লেফট উইং দিয়ে মার্কস আকুনিয়ার আচমকা বা পায়ের শট গোলবারে লেগে প্রতিহত হলে গোলবঞ্চিত হয় আর্জেন্টিনা। ৩০ মিনিটে আর্জেন্টিনার হয়ে গোলের সবচেয়ে সহজ সুযোগটি পেয়েছিলেন এনজো পেরেজ। মাত্র ছয় গজ দূর থেকে মেজার থেকে বল পেয়েও উন্মুক্ত গোলে বল না মেরে বাইরে পাঠান এই রিভার প্লেট তারকা।

আরও পড়ুনঃ ম্যাচ হেরেও যে বিরাট সুখবর পেলেন মেসি

ম্যাচে তেমন কোনো প্রভাবই রাখতে পারেননি মেসি। আর্জেন্টাইন ডিফেন্ডারদের ফাঁকি দিয়ে ৩৩ মিনিটে ভ্রাসালজিকোর ক্রসে মানজুকিচ হেড করলে তা লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়। গোল মুখের এত সামনে দাঁড়িয়ে এমন হেডে কার্যত হতাশা নেমে আসে ক্রোয়েটদের মাঝে। প্রথমার্ধের অতিরিক্ত সময়ে পেরেসিচ ফাঁকায় বল পেয়েও গোল করতে ব্যর্থ হন। গোলশূন্য অবস্থাতেই শেষ হয় প্রথমার্ধ।

ম্যাচ স্কোর-কার্ডঃ ৯০ মিনিট শেষে ম্যাচের ফলাফল আর্জেন্টিনা ০ – ক্রোয়েশিয়া ৩ । ৫৩ মিনিটে ১ম গোল করেছেন ক্রোয়েশিয়ার রেবিক। ও ৮০ মিনিটে ২য় গোলটি করেছেন মর্দিক। ম্যাচের ৩য় গোল আর্জেন্টিনার জালে শেষ পেরেকটি মারেন রেট্রিক। বল দখলের লড়াইয়ে এগিয়ে ছিল আর্জেন্টিনা। ৫৮% বল ছিল তাদের দখলে। অন্য দিকে আক্রমনে এগিয়ে ছিল ক্রোয়েশিয়া। এ পর্যন্ত আর্জেন্টিনার গোলপোস্টে ১৪টি শট নিয়েছে তারা। অন্যদিকে আর্জেন্টিনা নিয়েছে ১০টি।

এই জয়ের ফলে এক দিকে শেষ ষোল নিশ্চিত হলো ক্রোয়েশিয়ার। অন্যদিকে, গ্রুপ পর্ব থেকেই বিদায় নেওয়ার শঙ্কা উঁকি দিচ্ছে মেসিদের।

তবে এখনও সুযোগ রয়েছে মেসিদের দ্বিতীয় রাউন্ডে উঠার। তবে এক্ষেত্রে কিছু হিসাব নিকাশের ব্যাপার রয়েছে। মেসিদের দ্বিতীয় রাউন্ডে উঠতে হলে শুক্রবার আইসল্যান্ডের বিপক্ষে নাইজেরিয়াকে জিততে হবে (অথবা এই ম্যাচটি ড্র হতে হবে)। আবার নাইজেরিয়ার বিপক্ষে আর্জেন্টিনাকে অবশ্যই জয় পেতে হবে।

অপরদিকে, আইসল্যান্ডকে ক্রোয়েশিয়ার বিপক্ষে ড্র বা পরাজিত হতে হবে। তাহলে আর্জেন্টিনার সামনে সুযোগ আসবে দ্বিতীয় রাউন্ডে যাওয়ার।