এক মাসের মধ্যেই বেসরকারি শিক্ষক নিয়োগের নির্দেশ (এনটিআরসিএ)

বেসরকারি শিক্ষক নিবন্ধন ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষ (এনটিআরসিএ) কর্তৃক সুপারিশকৃত শিক্ষকদের আগামী এক মাসের মধ্যে নিয়োগ প্রদানের নির্দেশ প্রদান করেছে মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর (মাউশি)।

একই সাথে শিক্ষকদের যোগদানে কোনো ধরণের অর্থ আদায়ের চেষ্টা করা হলে প্রতিষ্ঠান প্রধানের বেতন-ভাতা স্থগিত/ বাতিল করার নির্দেশনা জারি করেছে মাউশি।

আর শিক্ষক নিয়োগে অনিয়মের অভিযোগ ফেলে প্রতিষ্ঠান পরিচালনা কমিটির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে বলেও জানিয়েছে।

আজ রবিবার মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক (কলেজ-৩) ফারহানা আক্তারের স্বাক্ষরিত এক জরুরী বিজ্ঞপ্তিতে এই নির্দেশনা প্রদান করা হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, এনটিআরসিএ কর্তৃক পত্রিকায় গণবিজ্ঞপ্তি প্রদান করে সারাদেশের বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান হতে শূন্যপদ/সৃষ্টপদে চাহিদার ভিত্তিতে ২৪ জানুয়ারি ২০১৯ তারিখে ৩৯ হাজার ৩১৭ জন শিক্ষক মেধাতালিকার ভিত্তিতে নিয়োগের সুপারিশ করা হয়।

এনটিআরসিএ কর্তৃক সুপারিশকৃত শিক্ষকদের এক মাসের মধ্যে নিয়োগ প্রদানের ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য প্রতিষ্ঠান প্রধানকে নির্দেশনা প্রদান করা হয়।

সুপারিশকৃত শিক্ষকদের যোগদানের ক্ষেত্রে শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের উন্নয়ন বাবদ অর্থ দাবি করে তাদের যোগদানে বাধা প্রধানসহ নানাভাবে হয়রানি করার অভিযোগ পাওয়া যাচ্ছে- যা সম্পূর্ণ বিধিবহির্ভূত।

এনটিআরসিএ কর্তৃক সুপারিশকৃত শিক্ষকদের নিকট থেকে কোন অর্থ দাবি করার সুযোগ নাই।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, জনবল কাঠামো-২০১৮ এর ১৮.১(ঘ) অনুচ্ছেদ অনুযায়ী ‘প্রতিষ্ঠান কর্তৃক এনটিআরসিএ-তে শিক্ষক/কর্মচারীর চাহিদা দিলে, উক্ত পদে এনটিআরসিএ কর্তৃক নির্বাচিত/মনোনীত শিক্ষক/কর্মচারীকে নিয়োগ দিতে হবে।

এর ব্যত্যয় ঘটলে প্রতিষ্ঠান প্রধানের বেতন-ভাতা স্থগিত বা বাতিল করা হবে এবং পরিচালনা কমিটির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

বিজ্ঞপ্তিতে আরো বলা হয়, এনটিআরসিএ কর্তৃক সুপারিশকৃত শিক্ষকদের নিকট থেকে কোন অর্থ দাবি করাসহ যোগদানের ক্ষেত্রে কোন হয়রানি করার অভিযোগ প্রমাণত হলে জনবল কাঠামো-২০১৮ এর ১৮.১(ঘ) অনুচ্ছেদ অনুযায়ী প্রতিষ্ঠান প্রধানের বেতন-ভাতা স্থগিত বা বাতিল করা হবে এবং পরিচালনা কমিটির বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’