আল্লাহর অশেষ রহমতে ধীরে ধীরে সুস্থ হয়ে উঠছেন ওবায়দুল কাদের

kader

সিঙ্গাপুরের মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদেরের হৃদযন্ত্রে স্থাপিত আইওবিপি মেশিন সরিয়ে নেওয়া হয়েছে।

কৃত্রিম সাপোর্ট ছাড়াই তার হৃদযন্ত্র স্বাভাবিকভাবে কাজ করছে। তার চিকিৎসায় গঠিত পাঁচসদস্যের চিকিৎসক দলের প্রধান ডা. ফিলিপ কোহর বরাত দিয়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের পরিচালক এবং নিওরোলজিস্ট প্রফেসর ডা. আবু নাসার রিজভী আজ দুপুরে হোটেল লবিতে উপস্থিত সাংবাদিকদের এই তথ্য জানান।

ম্যাসিভ হার্ট অ্যাটাক করে সিঙ্গাপুরের মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের অবস্থার আরও উন্নতি হয়েছে।

তার হৃদযন্ত্রে স্থাপিত আইওবিপি মেশিন সরিয়ে নেয়া হয়েছে। কৃত্রিম সাপোর্ট ছাড়াই তার হৃদযন্ত্র স্বাভাবিকভাবে কাজ করছে।

ওবায়দুল কাদেরের চিকিৎসা সমন্বয়ক ডা. রিজভী বলেন, সেতুমন্ত্রীর কিডনি আগের তুলনায় অনেক ভালো অবস্থায় রয়েছে।

ঘুমের ওষুধের পরিমাণও কমিয়ে আনা হয়েছে। তিনি চিকিৎসকদের ডাকে সাড়া দিচ্ছেন।

তিনি আরও জানান, ইনফেকশন অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে এসেছে। সব মিলিয়ে তার শারীরিক অবস্থার যথেষ্ট উন্নতি হয়েছে।

মাউন্ট এলিজাবেথে ডা. কোহের ব্রিফিংয়ে উপস্থিত ছিলেন ওবায়দুল কাদেরের স্ত্রী বেগম ইশরাতুন্নেসা কাদের, সংসদ সদস্য শেখ হেলালউদ্দীন, সিঙ্গাপুরে নিযুক্ত বাংলাদেশের হাইকমিশনার মোস্তাফিজুর রহমান ও ডা. রিজভী প্রমুখ।

পরে হাসপাতালের লবিতে ডা. রিজভীর ব্রিফিংয়ে ছিলেন গাজীপুর সিটি কর্পোরেশনের মেয়র জাহাঙ্গীর আলম, নোয়াখালী জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক একরামুল করিম চৌধুরী এমপি, ফেনী জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক নিজাম উদ্দীন হাজারী এমপি, সংসদ সদস্য ছোট মনির, নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ের সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ প্রমুখ।

আগামীকাল শুক্রবার স্থানীয় সময় বিকাল ৪টায় ডা. ফিলিপ আবারও ব্রিফ করবেন বলে এ সময় জানান।

এর আগে বুধবার এক ব্রিফিংয়ে মেডিকেল বোর্ড জানিয়েছিল- দু-একদিনের মধ্যেই ওবায়দুল কাদেরের লাইফসাপোর্টের কৃত্রিম ডিভাইস (যন্ত্রাদি) খুলে ফেলা হবে।

তারা জানিয়েছিলেন- ওবায়দুল কাদেরের শারীরিক অবস্থা দিন দিন ভালোর দিকে যাচ্ছে। তার কিডনি স্থিতিশীল আছে।

ইনফেকশনের মাত্রাও অনেকটা কমে গেছে। ব্লাড কাউন্ট ও ইউরিন আউটপুটও ভালো রয়েছে। হার্টের কন্ডিশন, প্রেসার ও হার্টবিট ভালো আছে।

এর আগে মঙ্গলবার মাউন্ট এলিজাবেথ হাসপাতালের চিকিৎসকরা জানিয়েছিলেন, শারীরিক অবস্থা স্থিতিশীল থাকলে সপ্তাহখানেক পর ওবায়দুল কাদেরের ওপেন হার্ট সার্জারি করা হবে।

গত রোববার সকাল ৭টায় ম্যাসিভ হার্ট অ্যাটাক করেন ওবায়দুল কাদের। তাকে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় হাসপাতালের (বিএসএমএমইউ)কার্ডিওলজি বিভাগের ক্রিটিক্যাল কেয়ার ইউনিটে (সিসিইউ) নিবিড় পর্যবেক্ষণে রাখা হয়।

সিসিইউর ২ নম্বর বেডে লাইফসাপোর্টে চিকিৎসা দেয়া হয় তাকে।

পরে সোমবার উপমহাদেশের প্রখ্যাত হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ ডা. দেবী শেঠির পরামর্শে ওবায়দুল কাদেরকে সিঙ্গাপুরে নিয়ে উন্নত চিকিৎসা দেয়ার সিদ্ধান্ত দেয় ওবায়দুল কাদেরের চিকিৎসায় গঠিত বিএসএমএমইউর মেডিকেল বোর্ড।

ওই দিনই এয়ার অ্যাম্বুলেন্সে তাকে মাউন্ট এলিজাবেথে এনে ভর্তি করা হয়।